ঢাকা ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
টপ নিউজ :
কুষ্টিয়ায় পুুকুরে ডুবে তিন শিশুর মৃত্যু মরদেহ ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবী পরিবারের চল্লিশ উর্ধ বয়সী স্কাউটারদের পায়ে হেঁটে ৫০ কিলোমিটার পরিভ্রমণে যাত্রা বেইলি রোডে আগুনে প্রাণ গেল ২ সাংবাদিকের কাচ্চি ভাই নয়, নিচের দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত: র‌্যাব বেইলি রোডে আগুন: মৃতের সংখ্যা বাড়ার কারণ জানালেন চিকিৎসক ৩ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে চট্টগ্রামের নির্মাণাধীন হিমাগারের আগুন বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় রাষ্ট্রপতির শোক বেইলি রোডের আগুন লাগা বহুতল ভবনটিতে অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল না: প্রধানমন্ত্রী ভবনে ভেন্টিলেশন ছিল না, নিহতরা ধোঁয়ায় মারা গেছেন

পুনরায় জীবন্ত ‘নক্সী কাঁথার মাঠ’

বাংলা ভাষার অমর আখ্যানকাব্য নক্সী কাঁথার মাঠকে ৩২ একরের বুকে পুনরায় জীবন্ত করে তুলল একঝাঁক সাহিত্যপিপাসু।

শব্দপ্রীতির ছকে বাঁধা পড়ে ১৯২৯–এর কাব্যোপন্যাসটিকে প্রায় এক শতাব্দী পরে আবার জাগিয়ে তোলে সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের (গবি) বাংলা বিভাগের ২৭ ব্যাচের পঞ্চম সেমিস্টারের শিক্ষার্থীরা।

যান্ত্রিকতাময় শহুরে জীবনকে পাশ কাটিয়ে সবুজ বৃক্ষরাজির গবি প্রাঙ্গণ যেন বাহারি বাতায়নকে ভেদ করে ফিরে যায় সেই পল্লি কবি জসীম উদ্‌দীনের নক্সী কাঁথার মাঠে। যার পরতে পরতে ভালোবাসার সুতায় বোনা লোকজ জীবনগাথা।

কোর্স ক্রম: ব-৩৫০৫, জসিম উদ্‌দীন (গদ্য ও পদ্য)–এর নক্সী কাঁথার মাঠ কাব্যগ্রন্থ অবলম্বনে আয়োজন করা হয় এ উপস্থাপনা পর্বের।

নির্ধারিত তারিখে সেমিস্টারটিতে অধ্যায়নরত সব শিক্ষার্থীরা নিজেদের টেনে নিয়ে যায় শত সহস্র দিন পিছিয়ে, যেখানে তাঁদের দেখা মেলে সাজু ও রুপাইয়ে বেশে। হাতে ও পায়ে আলতা, চিকন পাড়ের সুতির শাড়ি। হাতভর্তি কাচের চুরি। গ্রাম্য বালার চিকন বিনুনি যেন পল্লি কবির নিজের হাতে লেখা।

গ্রাম্য জীবনের অবুঝ নিটোল ভালোবাসা দোলা দিয়ে যায় সবার মনে। উপস্থাপনা শেষে নিজের মনের ভাব প্রকাশ করতে গিয়ে এই সেমিস্টারে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী সাদিয়া রহমান লাবণ্য জানান, ‘বিখ্যাত কাব্য কাহিনির সেই চরিত্র সাজু ও রুপাই সাজার মাধ্যমে আমরা সবাই যেন সেই গ্রামীণ জীবনের কিশোরীর আবেগ অনুভূতি ব্যতিক্রম উপায়ে অনুভব করতে পেরেছি। যান্ত্রিক জীবন থেকে বের হয়ে ক্ষণিকের জন্য অনুভব করেছি গ্রামীণ সাধারণ জীবনের বাস্তবতা। এ যেন এক অন্যরকম অনুভূতির বহিঃপ্রকাশ।’

সব শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রাণ ফিরতে দেখে উপস্থাপনাটির তত্ত্বাবধায়ক বাংলা বিভাগের সহকারী প্রভাষক শামসুন নাহার সেতু জানান, ‘ইট–কাঠ দালানের শহরে যখন হাঁপিয়ে উঠি আমরা, তখন আমাদের মনের শ্রান্তি দেয় নক্সী কাঁথার মাঠ। রুপাই–সাজুর প্রেম লোকজ জীবন আমাদের হাত ধরে টেনে নিয়ে বলে—কেনো বিশ্বদরবারের দারস্থ হওয়া? স্বয়ংসম্পূর্ণ আমাদের যে সংস্কৃতি, সেটা নিয়েই মাথা উঁচু করে বাঁচি না কেন আমরা? নক্সী কাঁথার মাঠে বিছানো যে শীতলপাটি, তার চেয়ে উপভোগ্য আর কী হতে পারে বাঙালির জন্য? আজ তোমাদের সাজু ও রুপাই রুপে দেখে ভীষণ ভালো লাগল।’

পল্লি কবির অতি যত্নে, ভাবাবেগে রচিত এই নক্সী কাঁথার মাঠ, যার পরতে পরতে রয়েছে গ্রামীণ জীবনচিত্র। লোকজ ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি। যার হালকা বাতাস ছড়িয়ে গিয়েছিল গবি প্রাঙ্গণেও।

দৌলতপুরে প্রান্তিক কৃষকের মাঝে প্রণোদনার বীজ ও সার বিতরন

পুনরায় জীবন্ত ‘নক্সী কাঁথার মাঠ’

আপডেট সময় ১০:৫৬:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী ২০২৪

বাংলা ভাষার অমর আখ্যানকাব্য নক্সী কাঁথার মাঠকে ৩২ একরের বুকে পুনরায় জীবন্ত করে তুলল একঝাঁক সাহিত্যপিপাসু।

শব্দপ্রীতির ছকে বাঁধা পড়ে ১৯২৯–এর কাব্যোপন্যাসটিকে প্রায় এক শতাব্দী পরে আবার জাগিয়ে তোলে সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের (গবি) বাংলা বিভাগের ২৭ ব্যাচের পঞ্চম সেমিস্টারের শিক্ষার্থীরা।

যান্ত্রিকতাময় শহুরে জীবনকে পাশ কাটিয়ে সবুজ বৃক্ষরাজির গবি প্রাঙ্গণ যেন বাহারি বাতায়নকে ভেদ করে ফিরে যায় সেই পল্লি কবি জসীম উদ্‌দীনের নক্সী কাঁথার মাঠে। যার পরতে পরতে ভালোবাসার সুতায় বোনা লোকজ জীবনগাথা।

কোর্স ক্রম: ব-৩৫০৫, জসিম উদ্‌দীন (গদ্য ও পদ্য)–এর নক্সী কাঁথার মাঠ কাব্যগ্রন্থ অবলম্বনে আয়োজন করা হয় এ উপস্থাপনা পর্বের।

নির্ধারিত তারিখে সেমিস্টারটিতে অধ্যায়নরত সব শিক্ষার্থীরা নিজেদের টেনে নিয়ে যায় শত সহস্র দিন পিছিয়ে, যেখানে তাঁদের দেখা মেলে সাজু ও রুপাইয়ে বেশে। হাতে ও পায়ে আলতা, চিকন পাড়ের সুতির শাড়ি। হাতভর্তি কাচের চুরি। গ্রাম্য বালার চিকন বিনুনি যেন পল্লি কবির নিজের হাতে লেখা।

গ্রাম্য জীবনের অবুঝ নিটোল ভালোবাসা দোলা দিয়ে যায় সবার মনে। উপস্থাপনা শেষে নিজের মনের ভাব প্রকাশ করতে গিয়ে এই সেমিস্টারে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী সাদিয়া রহমান লাবণ্য জানান, ‘বিখ্যাত কাব্য কাহিনির সেই চরিত্র সাজু ও রুপাই সাজার মাধ্যমে আমরা সবাই যেন সেই গ্রামীণ জীবনের কিশোরীর আবেগ অনুভূতি ব্যতিক্রম উপায়ে অনুভব করতে পেরেছি। যান্ত্রিক জীবন থেকে বের হয়ে ক্ষণিকের জন্য অনুভব করেছি গ্রামীণ সাধারণ জীবনের বাস্তবতা। এ যেন এক অন্যরকম অনুভূতির বহিঃপ্রকাশ।’

সব শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রাণ ফিরতে দেখে উপস্থাপনাটির তত্ত্বাবধায়ক বাংলা বিভাগের সহকারী প্রভাষক শামসুন নাহার সেতু জানান, ‘ইট–কাঠ দালানের শহরে যখন হাঁপিয়ে উঠি আমরা, তখন আমাদের মনের শ্রান্তি দেয় নক্সী কাঁথার মাঠ। রুপাই–সাজুর প্রেম লোকজ জীবন আমাদের হাত ধরে টেনে নিয়ে বলে—কেনো বিশ্বদরবারের দারস্থ হওয়া? স্বয়ংসম্পূর্ণ আমাদের যে সংস্কৃতি, সেটা নিয়েই মাথা উঁচু করে বাঁচি না কেন আমরা? নক্সী কাঁথার মাঠে বিছানো যে শীতলপাটি, তার চেয়ে উপভোগ্য আর কী হতে পারে বাঙালির জন্য? আজ তোমাদের সাজু ও রুপাই রুপে দেখে ভীষণ ভালো লাগল।’

পল্লি কবির অতি যত্নে, ভাবাবেগে রচিত এই নক্সী কাঁথার মাঠ, যার পরতে পরতে রয়েছে গ্রামীণ জীবনচিত্র। লোকজ ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি। যার হালকা বাতাস ছড়িয়ে গিয়েছিল গবি প্রাঙ্গণেও।