ঢাকা ০৭:৪৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্রের কাছে লজ্জার হার শান্তদের

লিটন-শান্তরা খ্যাপ খেলতে পাড়ার মাঠের গেলে কিনারে দর্শক দাঁড়ানোর জায়গা থাকবে না। সেখানে আনকোরা, গ্যালারি-দর্শকহীন মাঠে বিশ্বকাপের আয়োজক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ বাংলাদেশের! যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেট দল, উইকেট-কন্ডিশন জানা-বোঝার ভার যেন পড়েছে লিটন-শান্তদের কাঁধে। ওই বোঝা-পড়ার শুরুতে ফেল করেছে বাংলাদেশ। টি-২০ বিশ্বকাপের অন্যতম স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথটিতে ৫ উইকেটের বড় ব্যবধানে হেরেছে শান্তরা।

হাউস্টোনের গ্যালারি-ড্রেসিংরুমহীন মাঠ হলেও যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেটারদের তা ভালো মতো চেনা। কদিন আগে কানাডাকে ৪-০ ব্যবধানে হারিয়েছে তারা। বাংলাদেশকে হারানোর মিশনে টস জিতে বোলিং নেয় স্বাগতিকরা। বাংলাদেশকে আটকে রাখে  ১৫৩ রানে। টপ অর্ডারের ব্যর্থতায় বড় রান তুলতে পারেনি বাংলাদেশ।

ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকার ভালো শুরু করেও দলের ৩৪ রানে পরপর আউট হন। লিটন ১৫ বলে দুই ছক্কার শটে ১৪ রান করেন। সৌম্য খেলেন ১৩ বলে তিন চারের শটে ২০ রানের ইনিংস। অধিনায়ক নাজমুল শান্ত ব্যর্থ হন। তিনি ১১ বল খেলে মাত্র ৩ রান যোগ করেন। এরপর সাকিব ৬ রান করে ফিরলে ৬৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ।

ওই বিপদ থেকে তাওহীদ হৃদয় ও মাহমুদউল্লাহ উদ্ধার করেন। তারা ৬৭ রানের জুটি গড়েন। মাহমুদউল্লাহ ২২ বলে ৩১ রানের ইনিংস খেলেন। হৃদয় ইনিংসের শেষ বলে ৪৭ বল খেলে ৫৮ রানে আউট হন। তিনি তিনটি চার ও দুটি ছক্কার শট তোলেন। 

জবাব দিতে নেমে যুক্তরাষ্ট্র ভালো শুরু করলেও ৭৮ রানে চতুর্থ এবং ১৫তম ওভারে ৯৪ রানে পঞ্চম উইকেট হারায়। ম্যাচ বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। কিন্তু মিডল অর্ডারে যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে খেলা নিউজিল্যান্ডের সাবেক অলরাউন্ডার কোরি এন্ডারসন ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত হারমিট সিং ৬২ রানের জুটি গড়ে তিন বল থাকতে ম্যাচ বের করে নেন। 

এন্ডারসন খেলেন ২৫ বলে দুই ছক্কায় ৩৫ রানের ইনিংস। হারমিটের ব্যাট থেকে ১৩ বলে ৩৩ রানের ঝড়ো ইনিংস আসে। তিনি তিনটি ছক্কা ও দুটি চারের শট খেলেন। এর আগে ওপেনার স্টিফেন টেইলর ২৮ ও তিনে নামা আন্দ্রিয়েস গাউস ২৩ রানের ইনিংস খেলেন। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ৯ রান দরকার ছিল যুক্তরাষ্ট্রের। সাকিবের ওভার বাকি থাকলেও ক্রিজে বাঁ-হাতি ব্যাটার থাকায় মাহমুদউল্লাহকে বোলিংয়ে আনেন শান্ত। মুস্তাফিজ ২ উইকেট নিলেও ৪ ওভারে ৪১ রান দিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কাছে লজ্জার হার শান্তদের

আপডেট সময় ১২:২৮:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

লিটন-শান্তরা খ্যাপ খেলতে পাড়ার মাঠের গেলে কিনারে দর্শক দাঁড়ানোর জায়গা থাকবে না। সেখানে আনকোরা, গ্যালারি-দর্শকহীন মাঠে বিশ্বকাপের আয়োজক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ বাংলাদেশের! যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেট দল, উইকেট-কন্ডিশন জানা-বোঝার ভার যেন পড়েছে লিটন-শান্তদের কাঁধে। ওই বোঝা-পড়ার শুরুতে ফেল করেছে বাংলাদেশ। টি-২০ বিশ্বকাপের অন্যতম স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজের প্রথটিতে ৫ উইকেটের বড় ব্যবধানে হেরেছে শান্তরা।

হাউস্টোনের গ্যালারি-ড্রেসিংরুমহীন মাঠ হলেও যুক্তরাষ্ট্রের ক্রিকেটারদের তা ভালো মতো চেনা। কদিন আগে কানাডাকে ৪-০ ব্যবধানে হারিয়েছে তারা। বাংলাদেশকে হারানোর মিশনে টস জিতে বোলিং নেয় স্বাগতিকরা। বাংলাদেশকে আটকে রাখে  ১৫৩ রানে। টপ অর্ডারের ব্যর্থতায় বড় রান তুলতে পারেনি বাংলাদেশ।

ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকার ভালো শুরু করেও দলের ৩৪ রানে পরপর আউট হন। লিটন ১৫ বলে দুই ছক্কার শটে ১৪ রান করেন। সৌম্য খেলেন ১৩ বলে তিন চারের শটে ২০ রানের ইনিংস। অধিনায়ক নাজমুল শান্ত ব্যর্থ হন। তিনি ১১ বল খেলে মাত্র ৩ রান যোগ করেন। এরপর সাকিব ৬ রান করে ফিরলে ৬৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ।

ওই বিপদ থেকে তাওহীদ হৃদয় ও মাহমুদউল্লাহ উদ্ধার করেন। তারা ৬৭ রানের জুটি গড়েন। মাহমুদউল্লাহ ২২ বলে ৩১ রানের ইনিংস খেলেন। হৃদয় ইনিংসের শেষ বলে ৪৭ বল খেলে ৫৮ রানে আউট হন। তিনি তিনটি চার ও দুটি ছক্কার শট তোলেন। 

জবাব দিতে নেমে যুক্তরাষ্ট্র ভালো শুরু করলেও ৭৮ রানে চতুর্থ এবং ১৫তম ওভারে ৯৪ রানে পঞ্চম উইকেট হারায়। ম্যাচ বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। কিন্তু মিডল অর্ডারে যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে খেলা নিউজিল্যান্ডের সাবেক অলরাউন্ডার কোরি এন্ডারসন ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত হারমিট সিং ৬২ রানের জুটি গড়ে তিন বল থাকতে ম্যাচ বের করে নেন। 

এন্ডারসন খেলেন ২৫ বলে দুই ছক্কায় ৩৫ রানের ইনিংস। হারমিটের ব্যাট থেকে ১৩ বলে ৩৩ রানের ঝড়ো ইনিংস আসে। তিনি তিনটি ছক্কা ও দুটি চারের শট খেলেন। এর আগে ওপেনার স্টিফেন টেইলর ২৮ ও তিনে নামা আন্দ্রিয়েস গাউস ২৩ রানের ইনিংস খেলেন। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ৯ রান দরকার ছিল যুক্তরাষ্ট্রের। সাকিবের ওভার বাকি থাকলেও ক্রিজে বাঁ-হাতি ব্যাটার থাকায় মাহমুদউল্লাহকে বোলিংয়ে আনেন শান্ত। মুস্তাফিজ ২ উইকেট নিলেও ৪ ওভারে ৪১ রান দিয়েছেন।