ঢাকা ০২:৪২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তেহরানে রাইসির জানাজায় মানুষের ঢল, ইমাম খামেনেয়ি

হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে সদ্য প্রয়াত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির জানাজা তেহরানে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২২ মে) তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ জানাজায় ইমামতি করেন দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনেয়ি।

ইরানি বার্তা সংস্থা ইরনা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, হাজারো মানুষ কালো পোশাক পরে রাইসি ও তার সফরসঙ্গীদের জানাজায় অংশ নেন। জানাজা শেষে বহু মানুষ রাইসির কফিন ছুঁয়ে শোকও প্রকাশ করেন। তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে জানাজা শেষে রাইসির কফিন নিয়ে আজাদি চত্বরের পথে একটি শোকযাত্রা হয়। এতেও যোগ দেন হাজার হাজার মানুষ।

শোকার্ত জনতার হাতে ছিল রাইসির ছবিসহ নানা বক্তব্য লেখা প্ল্যাকার্ড। এর আগে তাবরিজ ও কোম শহরেও শেষযাত্রায় মানুষের ঢল নামে। প্রেসিডেন্ট ও সফরসঙ্গীদের শেষযাত্রার কারণে আজ (বুধবার) তেহরানে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

তেহরান থেকে আজ মরদেহগুলো নেয়া হবে বিরজান্দ শহরে। বিরজান্দ থেকে মরদেহগুলো মাশহাদে নেয়া হবে। সেখানেও জনগণ তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন। রাইসির জন্মশহর মাশহাদে শেষ বিদায়ের অনুষ্ঠানের পর বৃহস্পতিবার (২৩ মে) ইমাম রেজা (আ.)’র মাজার কমপ্লেক্সে তাকে দাফন করা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার (২১ মে) ইরানের উত্তর–পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর তাবরিজে রাইসি ও তার সফরসঙ্গীদের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সন্ধ্যায় রাইসির মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কোম শহরে, যেখানে ইব্রাহিম রাইসি পড়াশোনা করেছেন। কোমে আরেকটি জানাজা শেষে রাইসি ও তার সঙ্গীদের মরদেহ তেহরানে নেয়া হয়।

তেহরানে রাইসির জানাজায় মানুষের ঢল, ইমাম খামেনেয়ি

আপডেট সময় ১০:২৬:২৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে সদ্য প্রয়াত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির জানাজা তেহরানে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২২ মে) তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ জানাজায় ইমামতি করেন দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনেয়ি।

ইরানি বার্তা সংস্থা ইরনা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, হাজারো মানুষ কালো পোশাক পরে রাইসি ও তার সফরসঙ্গীদের জানাজায় অংশ নেন। জানাজা শেষে বহু মানুষ রাইসির কফিন ছুঁয়ে শোকও প্রকাশ করেন। তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে জানাজা শেষে রাইসির কফিন নিয়ে আজাদি চত্বরের পথে একটি শোকযাত্রা হয়। এতেও যোগ দেন হাজার হাজার মানুষ।

শোকার্ত জনতার হাতে ছিল রাইসির ছবিসহ নানা বক্তব্য লেখা প্ল্যাকার্ড। এর আগে তাবরিজ ও কোম শহরেও শেষযাত্রায় মানুষের ঢল নামে। প্রেসিডেন্ট ও সফরসঙ্গীদের শেষযাত্রার কারণে আজ (বুধবার) তেহরানে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

তেহরান থেকে আজ মরদেহগুলো নেয়া হবে বিরজান্দ শহরে। বিরজান্দ থেকে মরদেহগুলো মাশহাদে নেয়া হবে। সেখানেও জনগণ তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন। রাইসির জন্মশহর মাশহাদে শেষ বিদায়ের অনুষ্ঠানের পর বৃহস্পতিবার (২৩ মে) ইমাম রেজা (আ.)’র মাজার কমপ্লেক্সে তাকে দাফন করা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার (২১ মে) ইরানের উত্তর–পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর তাবরিজে রাইসি ও তার সফরসঙ্গীদের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সন্ধ্যায় রাইসির মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কোম শহরে, যেখানে ইব্রাহিম রাইসি পড়াশোনা করেছেন। কোমে আরেকটি জানাজা শেষে রাইসি ও তার সঙ্গীদের মরদেহ তেহরানে নেয়া হয়।