ঢাকা ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপ : বাংলাদেশি সমর্থকদের টাইম জোন বিড়ম্বনা

  • ডিপি ডেস্ক
  • আপডেট সময় ১১:১৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪
  • 7

ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসর। অংশ নেবে রেকর্ড ২০টি দেশ। এর আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এতো বেশি দলের অংশগ্রহণের নজির নেই কোনো।

২০২২ সালে অস্ট্রেলিয়ায় হয় আগের আসর। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হিসেব আসর শুরু করবে ইংল্যান্ড। রেকর্ড সংখ্যক অংশগ্রহণে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ আয়েজন করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। আর সহ-আয়োজক ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দুই দেশের সঙ্গে টাইম জোনের (সময় অঞ্চল) বিশাল পার্থক্য রয়েছে বাংলাদেশ তথা পুরো ভারতীয় মহাদেশের। তাই ১ জুন যুক্তরাষ্ট্রে পর্দা উঠবে ধুম-ধারাক্কার বিশ্ব আসরের। আর বাংলাদেশে সেটি হয়ে যাচ্ছে পরদিন অর্থাৎ ২ জুন।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে টাইম জোন কী? টাইম জোন হচ্ছে এমন একটি এলাকা যেখানে প্রত্যেকে সমস্ত সামাজিক, ব্যবসায়িক এবং আইনি কর্মকাণ্ডের জন্য একই আদর্শ সময় ব্যবহার করে। পুরো পৃথিবী ২৪টি টাইম জোন (দ্রাঘিমাংশ) দ্বারা বিভক্ত।

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় স্বাগতিকদের সঙ্গে কানাডার ম্যাচ দিয়ে শুরু বিশ্বকাপের মাঠের লড়াই। কিন্তু ১১ ঘণ্টা এগিয়ে থাকায় টাইম জোন অনুযায়ী বাংলাদেশে ম্যাচটি মাঠে গড়াবে ২ জুন ভোর সাড়ে ৬টায়।

ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ ওয়েস্ট ইন্ডিজেও হবে বিশ্বকাপের ম্যাচ। টাইম জোনের ফারাকের কারণে এখানকার ম্যাচগুলো হবে বাংলাদেশ সময় মধ্যরাতে। ১৮ জুন পর্যন্ত চলবে গ্রুপপর্বে ম্যাচে। প্রতিদিন অন্তত একটি করে ম্যাচ রয়েছে। আবার কখনো কখনো দুটি বা তিনটি করেও ম্যাচ সূচিতে রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের আলাদা টাইম জোনের কারণে বাংলাদেশসহ ভারত-পাকিস্তান-নেপালে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে হবে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচ। এই যেমন বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৫টা, ভোর সাড়ে ৬টা, রাত সাড়ে ৮টা, রাত সাড়ে ৯টা, রাত ১১টা ও রাত ১টায় মাঠে গড়াবে বিশ্বকাপের ম্যাচ।

গ্রুপপর্ব শেষে হবে সুপার এইট। ১৯ জুন শুরু হয়ে সেরা ৮ দলের লড়াই চলবে ২৫ জুন পর্যন্ত। এই পর্বে বেশিরভাগ সময় দিনে দুটি করে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। তবে এবার ম্যাচ শুরুর সময় থাকবে নির্দিষ্ট, সাড়ে ৬টা আর রাত সাড়ে ৮টা (বাংলাদেশ সময়)।

এরপর একই দিন ২৭ জুন মাঠে গড়াবে দুইটি সেমিফাইনাল। ফাইনালে ওঠার লড়াই শুরুর সময়ও নির্দিষ্ট, সাড়ে ৬টা আর রাত সাড়ে ৮টা (বাংলাদেশ সময়)। আর ২৯ জুন শনিবার হবে ফাইনাল। বার্বাজোজে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হবে শিরোপা জয়ের লড়াই। যা বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টা।

টাইম জোনের ভিন্নতার কারণে বিভিন্ন সময়ে খেলা মাঠে গড়ানোয়, বিশ্বকাপ উপভোগ করতে কিছুটা সমস্যা হওয়ার কথা বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের ক্রিকেট প্রেমিদের।

টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপ : বাংলাদেশি সমর্থকদের টাইম জোন বিড়ম্বনা

আপডেট সময় ১১:১৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসর। অংশ নেবে রেকর্ড ২০টি দেশ। এর আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এতো বেশি দলের অংশগ্রহণের নজির নেই কোনো।

২০২২ সালে অস্ট্রেলিয়ায় হয় আগের আসর। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হিসেব আসর শুরু করবে ইংল্যান্ড। রেকর্ড সংখ্যক অংশগ্রহণে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ আয়েজন করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। আর সহ-আয়োজক ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দুই দেশের সঙ্গে টাইম জোনের (সময় অঞ্চল) বিশাল পার্থক্য রয়েছে বাংলাদেশ তথা পুরো ভারতীয় মহাদেশের। তাই ১ জুন যুক্তরাষ্ট্রে পর্দা উঠবে ধুম-ধারাক্কার বিশ্ব আসরের। আর বাংলাদেশে সেটি হয়ে যাচ্ছে পরদিন অর্থাৎ ২ জুন।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে টাইম জোন কী? টাইম জোন হচ্ছে এমন একটি এলাকা যেখানে প্রত্যেকে সমস্ত সামাজিক, ব্যবসায়িক এবং আইনি কর্মকাণ্ডের জন্য একই আদর্শ সময় ব্যবহার করে। পুরো পৃথিবী ২৪টি টাইম জোন (দ্রাঘিমাংশ) দ্বারা বিভক্ত।

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় স্বাগতিকদের সঙ্গে কানাডার ম্যাচ দিয়ে শুরু বিশ্বকাপের মাঠের লড়াই। কিন্তু ১১ ঘণ্টা এগিয়ে থাকায় টাইম জোন অনুযায়ী বাংলাদেশে ম্যাচটি মাঠে গড়াবে ২ জুন ভোর সাড়ে ৬টায়।

ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ ওয়েস্ট ইন্ডিজেও হবে বিশ্বকাপের ম্যাচ। টাইম জোনের ফারাকের কারণে এখানকার ম্যাচগুলো হবে বাংলাদেশ সময় মধ্যরাতে। ১৮ জুন পর্যন্ত চলবে গ্রুপপর্বে ম্যাচে। প্রতিদিন অন্তত একটি করে ম্যাচ রয়েছে। আবার কখনো কখনো দুটি বা তিনটি করেও ম্যাচ সূচিতে রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের আলাদা টাইম জোনের কারণে বাংলাদেশসহ ভারত-পাকিস্তান-নেপালে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে হবে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচ। এই যেমন বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৫টা, ভোর সাড়ে ৬টা, রাত সাড়ে ৮টা, রাত সাড়ে ৯টা, রাত ১১টা ও রাত ১টায় মাঠে গড়াবে বিশ্বকাপের ম্যাচ।

গ্রুপপর্ব শেষে হবে সুপার এইট। ১৯ জুন শুরু হয়ে সেরা ৮ দলের লড়াই চলবে ২৫ জুন পর্যন্ত। এই পর্বে বেশিরভাগ সময় দিনে দুটি করে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। তবে এবার ম্যাচ শুরুর সময় থাকবে নির্দিষ্ট, সাড়ে ৬টা আর রাত সাড়ে ৮টা (বাংলাদেশ সময়)।

এরপর একই দিন ২৭ জুন মাঠে গড়াবে দুইটি সেমিফাইনাল। ফাইনালে ওঠার লড়াই শুরুর সময়ও নির্দিষ্ট, সাড়ে ৬টা আর রাত সাড়ে ৮টা (বাংলাদেশ সময়)। আর ২৯ জুন শনিবার হবে ফাইনাল। বার্বাজোজে স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায় শুরু হবে শিরোপা জয়ের লড়াই। যা বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টা।

টাইম জোনের ভিন্নতার কারণে বিভিন্ন সময়ে খেলা মাঠে গড়ানোয়, বিশ্বকাপ উপভোগ করতে কিছুটা সমস্যা হওয়ার কথা বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের ক্রিকেট প্রেমিদের।