ঢাকা ০৭:৩৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
টপ নিউজ :
কুষ্টিয়ায় পুুকুরে ডুবে তিন শিশুর মৃত্যু মরদেহ ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবী পরিবারের চল্লিশ উর্ধ বয়সী স্কাউটারদের পায়ে হেঁটে ৫০ কিলোমিটার পরিভ্রমণে যাত্রা বেইলি রোডে আগুনে প্রাণ গেল ২ সাংবাদিকের কাচ্চি ভাই নয়, নিচের দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত: র‌্যাব বেইলি রোডে আগুন: মৃতের সংখ্যা বাড়ার কারণ জানালেন চিকিৎসক ৩ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে চট্টগ্রামের নির্মাণাধীন হিমাগারের আগুন বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় রাষ্ট্রপতির শোক বেইলি রোডের আগুন লাগা বহুতল ভবনটিতে অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল না: প্রধানমন্ত্রী ভবনে ভেন্টিলেশন ছিল না, নিহতরা ধোঁয়ায় মারা গেছেন

সত্য বলার কারণে বন্ধুর সংখ্যা কমে গেছে মিমির

টালিউড ইন্ডাস্ট্রিতে স্পষ্টভাষী হিসেবে বেশ পরিচিত অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীর। পর্দায় অভিনয়ের বাইরে একজন সংসদ সদস্য হিসেবেও বেশ প্রশংসিত তিনি। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও বেশ সক্রিয় এই তারকা। প্রায়ই নিজের ক্যারিয়ারের বাইরে ব্যক্তিগত বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলতে দেখা যায় মিমিকে।

ঠোঁটকাটা স্বভাবের যে ক’জন অভিনয়শিল্পী আছেন তাদের মধ্যে মিমি চক্রবর্তীর নামটা প্রথমে। ব্যক্তিগত জীবনের চেয়ে কাজ দিয়ে নিজেকে সুপ্রতিষ্ঠিত করলেও ঠোঁটকাটা স্বভাবের জন্য জীবনে বহুবার সমস্যায় পড়েছেন এই অভিনেত্রী। ইদানীং নাকি সেই সমস্যা আরও বেড়ে গেছে। সত্যিটা বলার কারণে নাকি ইন্ডাস্ট্রিতে তার বন্ধুর সংখ্যাও এখন তলানিতে।

তিনি কখনো মিথ্যার আশ্রয় নেন না। সত্য বলে বিভিন্ন সময় অনেক কিছু হারিয়েছেন। একই সঙ্গে অনেকের শত্রু হয়েছেন বলেও জানিয়েছেন এই টালি নায়িকা।

সম্প্রতি ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মিমি বলেন, আমি সত্য বলে জীবনে অনেক বন্ধু হারিয়েছি। আর এর কোনো হিসাব নেই। তারা আসলে সবাই তেল মারায় অভ্যস্ত। আবার সত্য বলার জন্য তাদের শত্রুও হয়েছিলাম।

সত্য বলে শত্রু হওয়ার কারণে বন্ধুর সংখ্যা কমে যাওয়া স্বাভাবিক। তবে এর জন্য কখনো কোনো আফসোস হয় কিনা―এ ব্যাপারে এ অভিনেত্রী বলেন, একদমই না। এটাই বরং বেশ ভালো। যারা সত্য কথা বললে চলে যায়, তারা কখনোই বন্ধু ছিল না আমার।

মিমি বলেন, যারা থেকে গেছে, তারা সারা জীবন আমার সঙ্গে থাকবে। অনেকেই হয়তো মুখে বলবে, আমায় কিন্তু সব সত্য বলবি। কিন্তু যখনই আমি সত্য বললাম, তখন আর নিতে পারে না তারা। আসলে এরকম কাউকে প্রয়োজন নেই আমার। বন্ধুরা তো সাফল্যে খুশি হবে, বাহবা দেবে। কিন্তু তারা যদি ঈর্ষা করে তাহলে কিসের বন্ধু। জীবনে খুব কম মানুষ রয়েছে যারা আমায় নিয়ে গর্ব করে। আর এই ধরনের কিছু বন্ধু আছে বলে আমিও ভীষণ গর্বিত।

দৌলতপুরে প্রান্তিক কৃষকের মাঝে প্রণোদনার বীজ ও সার বিতরন

সত্য বলার কারণে বন্ধুর সংখ্যা কমে গেছে মিমির

আপডেট সময় ১০:৫৫:২৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী ২০২৪

টালিউড ইন্ডাস্ট্রিতে স্পষ্টভাষী হিসেবে বেশ পরিচিত অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তীর। পর্দায় অভিনয়ের বাইরে একজন সংসদ সদস্য হিসেবেও বেশ প্রশংসিত তিনি। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও বেশ সক্রিয় এই তারকা। প্রায়ই নিজের ক্যারিয়ারের বাইরে ব্যক্তিগত বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলতে দেখা যায় মিমিকে।

ঠোঁটকাটা স্বভাবের যে ক’জন অভিনয়শিল্পী আছেন তাদের মধ্যে মিমি চক্রবর্তীর নামটা প্রথমে। ব্যক্তিগত জীবনের চেয়ে কাজ দিয়ে নিজেকে সুপ্রতিষ্ঠিত করলেও ঠোঁটকাটা স্বভাবের জন্য জীবনে বহুবার সমস্যায় পড়েছেন এই অভিনেত্রী। ইদানীং নাকি সেই সমস্যা আরও বেড়ে গেছে। সত্যিটা বলার কারণে নাকি ইন্ডাস্ট্রিতে তার বন্ধুর সংখ্যাও এখন তলানিতে।

তিনি কখনো মিথ্যার আশ্রয় নেন না। সত্য বলে বিভিন্ন সময় অনেক কিছু হারিয়েছেন। একই সঙ্গে অনেকের শত্রু হয়েছেন বলেও জানিয়েছেন এই টালি নায়িকা।

সম্প্রতি ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মিমি বলেন, আমি সত্য বলে জীবনে অনেক বন্ধু হারিয়েছি। আর এর কোনো হিসাব নেই। তারা আসলে সবাই তেল মারায় অভ্যস্ত। আবার সত্য বলার জন্য তাদের শত্রুও হয়েছিলাম।

সত্য বলে শত্রু হওয়ার কারণে বন্ধুর সংখ্যা কমে যাওয়া স্বাভাবিক। তবে এর জন্য কখনো কোনো আফসোস হয় কিনা―এ ব্যাপারে এ অভিনেত্রী বলেন, একদমই না। এটাই বরং বেশ ভালো। যারা সত্য কথা বললে চলে যায়, তারা কখনোই বন্ধু ছিল না আমার।

মিমি বলেন, যারা থেকে গেছে, তারা সারা জীবন আমার সঙ্গে থাকবে। অনেকেই হয়তো মুখে বলবে, আমায় কিন্তু সব সত্য বলবি। কিন্তু যখনই আমি সত্য বললাম, তখন আর নিতে পারে না তারা। আসলে এরকম কাউকে প্রয়োজন নেই আমার। বন্ধুরা তো সাফল্যে খুশি হবে, বাহবা দেবে। কিন্তু তারা যদি ঈর্ষা করে তাহলে কিসের বন্ধু। জীবনে খুব কম মানুষ রয়েছে যারা আমায় নিয়ে গর্ব করে। আর এই ধরনের কিছু বন্ধু আছে বলে আমিও ভীষণ গর্বিত।