ঢাকা ০৪:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সৌম্য সরকার: শূণ্য সম্রাট!

আয়ারল্যান্ড অধিনায়ক পল স্টার্লিংয়ের আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি ক্যারিয়ার ১৫ বছরের। এত দিনে ১৪৪টি টি–টোয়েন্টি খেলে মাত্র ১৩ বার ০ রানে আউট হয়েছেন স্টার্লিং। আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে এত দিন সর্বোচ্চসংখ্যকবার ০ রানে আউট হওয়ার বিব্রতকর বিশ্ব রেকর্ডটি তাঁর একার দখলে থাকলেও স্টার্লিং অনুযোগ করে বলতেই পারেন, এত বছর ধরে এতগুলো ম্যাচ খেললে অমন একটু–আধটু হতেই পারে!

কিন্তু সৌম্য সরকার ঠিক কী দিয়ে নিজেকে প্রবোধ দেবেন? বাংলাদেশি ওপেনারের আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের বয়স স্টার্লিংয়ের প্রায় অর্ধেক। ম্যাচ এবং ইনিংসের সংখ্যায়ও প্রায় অর্ধেক। কিন্তু ০ রানে আউট হওয়ায় সৌম্য ও স্টার্লিং এখন সমানে সমান। অর্থাৎ আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চসংখ্যকবার ০ রানে আউট হওয়ার বিশ্ব রেকর্ড এখন সৌম্যরও। স্টার্লিং হাঁপ ছেড়ে বাঁচতে পারেন এই ভেবে, যাকগে অন্তত একজন সঙ্গী তো মিলল! একা একা কত দিন আর শূন্যের কণ্টকাকীর্ণ মুকুট পরে থাকা সম্ভব! স্টার্লিং তাই সৌম্যকে একটা ধন্যবাদ জানাতেই পারেন।

ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলে ইনিংসের মাত্র তৃতীয় বলেই মিড অনে ক্যাচ শিখিয়ে আউট হন সৌম্য। তখন তাঁর মুখের দিকে তাকানো যাচ্ছিল না। যেন রাজ্যের আঁধার ভর করেছে। বোঝাই যাচ্ছিল, শটটি অনিয়ন্ত্রিত ছিল এবং ভুল করে সেটাই খেলে ফেলায় সৌম্য সম্ভবত নিজেকেই শাপশাপান্ত করছিলেন। কিন্তু কথায় আছে, কারও পৌষ মাস কারও সর্বনাশ! সৌম্যর ওই আউটের পরই স্টার্লিংয়ের মুখের হাসি সম্ভবত চওড়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে এটা যে সৌম্যর ১৩তম ‘ডাক’। অর্থাৎ সর্বোচ্চসংখ্যকবার ০ রানে আউট হওয়ার বিশ্ব রেকর্ডের জন্য এখন শুধু একাই স্টার্লিংকে রঙ্গরসিকতার শিকার হতে হবে না। ভাগটা নিতে হবে সৌম্যকেও।

আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে ৮৪ ম্যাচে ৮৩ ইনিংসে ১৭.৬৯ গড়ে ১৩৯৮ রান করার পথে ১৩ বার ০ রানে আউট হয়েছেন সৌম্য। স্টার্লিং ১৪৪ ম্যাচে ১৪৩ ইনিংসে ২৭.২৭ গড়ে ৩৬০০ রান করার পথে ০ রানে আউট হয়েছেন ১৩ বার। ‘আনলাকি থার্টিন’–এর এই ক্লাবে সদস্য শুধু তাঁরা দুজনেই। ‘আনলাকি টুয়েলভ’, অর্থাৎ ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন চারজন। এর মধ্যে দুজন প্রায় অচেনা, একজন বেশ পরিচিত এবং অন্যজন বলতে গেলে কিংবদন্তি!

রুয়ান্ডার ২৪ বছর বয়সী স্পিনার কেভিন ইরাকোজের নাম আপনি না–ও শুনতে পারেন। তবে ২০২১ থেকে ২০২৩—এই অল্প সময়ের মধ্যে ৭২ ম্যাচে ৫৫ ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ১২ বার ০ রানে আউট হয়ে কারও কারও চোখে বিস্ময়ের জন্ম দিতে পারেন ইরাকোজে। আয়ারল্যান্ডের সাবেক ব্যাটসম্যান কেভিন ও’ব্রায়েন ১১০ ম্যাচে ১০৩ ইনিংসে ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন। ঘানার ড্যানিয়েল অ্যানেফি এই ‘আনলাকি টুয়েলভ’ ক্লাবের মধ্যে দ্রুততম। ২০১৯ থেকে ২০২৩ এর মধ্যে মাত্র ৩৬ ম্যাচে ২৮ ইনিংসে ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন এই অলরাউন্ডার। শেষের জনের নাম রোহিত শর্মা। ১৫২ ম্যাচে ১৪৪ ইনিংসে ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন ভারতের অধিনায়ক।

সৌম্য সরকার: শূণ্য সম্রাট!

আপডেট সময় ০৩:৩৬:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ৮ জুন ২০২৪

আয়ারল্যান্ড অধিনায়ক পল স্টার্লিংয়ের আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি ক্যারিয়ার ১৫ বছরের। এত দিনে ১৪৪টি টি–টোয়েন্টি খেলে মাত্র ১৩ বার ০ রানে আউট হয়েছেন স্টার্লিং। আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে এত দিন সর্বোচ্চসংখ্যকবার ০ রানে আউট হওয়ার বিব্রতকর বিশ্ব রেকর্ডটি তাঁর একার দখলে থাকলেও স্টার্লিং অনুযোগ করে বলতেই পারেন, এত বছর ধরে এতগুলো ম্যাচ খেললে অমন একটু–আধটু হতেই পারে!

কিন্তু সৌম্য সরকার ঠিক কী দিয়ে নিজেকে প্রবোধ দেবেন? বাংলাদেশি ওপেনারের আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের বয়স স্টার্লিংয়ের প্রায় অর্ধেক। ম্যাচ এবং ইনিংসের সংখ্যায়ও প্রায় অর্ধেক। কিন্তু ০ রানে আউট হওয়ায় সৌম্য ও স্টার্লিং এখন সমানে সমান। অর্থাৎ আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে সর্বোচ্চসংখ্যকবার ০ রানে আউট হওয়ার বিশ্ব রেকর্ড এখন সৌম্যরও। স্টার্লিং হাঁপ ছেড়ে বাঁচতে পারেন এই ভেবে, যাকগে অন্তত একজন সঙ্গী তো মিলল! একা একা কত দিন আর শূন্যের কণ্টকাকীর্ণ মুকুট পরে থাকা সম্ভব! স্টার্লিং তাই সৌম্যকে একটা ধন্যবাদ জানাতেই পারেন।

ধনাঞ্জয়া ডি সিলভার বলে ইনিংসের মাত্র তৃতীয় বলেই মিড অনে ক্যাচ শিখিয়ে আউট হন সৌম্য। তখন তাঁর মুখের দিকে তাকানো যাচ্ছিল না। যেন রাজ্যের আঁধার ভর করেছে। বোঝাই যাচ্ছিল, শটটি অনিয়ন্ত্রিত ছিল এবং ভুল করে সেটাই খেলে ফেলায় সৌম্য সম্ভবত নিজেকেই শাপশাপান্ত করছিলেন। কিন্তু কথায় আছে, কারও পৌষ মাস কারও সর্বনাশ! সৌম্যর ওই আউটের পরই স্টার্লিংয়ের মুখের হাসি সম্ভবত চওড়া হয়েছে। আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে এটা যে সৌম্যর ১৩তম ‘ডাক’। অর্থাৎ সর্বোচ্চসংখ্যকবার ০ রানে আউট হওয়ার বিশ্ব রেকর্ডের জন্য এখন শুধু একাই স্টার্লিংকে রঙ্গরসিকতার শিকার হতে হবে না। ভাগটা নিতে হবে সৌম্যকেও।

আন্তর্জাতিক টি–টোয়েন্টিতে ৮৪ ম্যাচে ৮৩ ইনিংসে ১৭.৬৯ গড়ে ১৩৯৮ রান করার পথে ১৩ বার ০ রানে আউট হয়েছেন সৌম্য। স্টার্লিং ১৪৪ ম্যাচে ১৪৩ ইনিংসে ২৭.২৭ গড়ে ৩৬০০ রান করার পথে ০ রানে আউট হয়েছেন ১৩ বার। ‘আনলাকি থার্টিন’–এর এই ক্লাবে সদস্য শুধু তাঁরা দুজনেই। ‘আনলাকি টুয়েলভ’, অর্থাৎ ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন চারজন। এর মধ্যে দুজন প্রায় অচেনা, একজন বেশ পরিচিত এবং অন্যজন বলতে গেলে কিংবদন্তি!

রুয়ান্ডার ২৪ বছর বয়সী স্পিনার কেভিন ইরাকোজের নাম আপনি না–ও শুনতে পারেন। তবে ২০২১ থেকে ২০২৩—এই অল্প সময়ের মধ্যে ৭২ ম্যাচে ৫৫ ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ১২ বার ০ রানে আউট হয়ে কারও কারও চোখে বিস্ময়ের জন্ম দিতে পারেন ইরাকোজে। আয়ারল্যান্ডের সাবেক ব্যাটসম্যান কেভিন ও’ব্রায়েন ১১০ ম্যাচে ১০৩ ইনিংসে ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন। ঘানার ড্যানিয়েল অ্যানেফি এই ‘আনলাকি টুয়েলভ’ ক্লাবের মধ্যে দ্রুততম। ২০১৯ থেকে ২০২৩ এর মধ্যে মাত্র ৩৬ ম্যাচে ২৮ ইনিংসে ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন এই অলরাউন্ডার। শেষের জনের নাম রোহিত শর্মা। ১৫২ ম্যাচে ১৪৪ ইনিংসে ১২ বার ০ রানে আউট হয়েছেন ভারতের অধিনায়ক।