ঢাকা ০২:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জার্মান প্রেমের গল্প ‘কাইরোস’ বুকার পুরস্কার জিতল

জার্মান লেখিকা জেনি এরপেনবেক এবং অনুবাদক মাইকেল হফম্যান গতকাল মঙ্গলবার কাইরোস উপন্যাসের জন্য আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারে বিজয়ী হয়েছেন। জার্মান ভাষায় লেখা বইটি ১৯৮০-এর দশকে পূর্ব বার্লিনে একজন বয়স্ক পুরুষের সঙ্গে এক যুবতীর ‘ধ্বংসাত্মক সম্পর্কের’ কাহিনি তুলে ধরা হয়েছে।

লন্ডনের টেট মডার্ন গ্যালারিতে একটি অনুষ্ঠানে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কারটি হস্তান্তর করা হয়। সারা বিশ্বের কথাসাহিত্যের কাজকে স্বীকৃতি দিতে ইংরেজিতে অনুবাদ হওয়া বই থেকে বুকার পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। পুরস্কারের ৬২ হাজার ডলার লেখক এবং অনুবাদকের মধ্যে সমানভাবে ভাগ করে দেওয়া হবে।

২০২৪ সালের বিচারকদের সভাপতি এলেনর ওয়াচটেল এরপেনবেকের ‘উজ্জ্বল গদ্য’, ‘মানবিক সম্পর্কের জটিলতা’ এবং পূর্ব বার্লিনের পরিবেশের বর্ণনার প্রশংসা করেছেন। উপন্যাসটিতে পূর্ব জার্মানির পতনের সময়ে গড়ে ওঠা একটি প্রেমের সম্পর্কের কথা বলা হয়েছে।

‘কাইরোস’ এরপেনবেকের চতুর্থ উপন্যাস। তাঁর দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য এন্ড অব ডেজ’–এর জন্য তিনি ২০১৫ সালে ইনডিপেনডেন্ট ফরেন ফিকশন পুরস্কার পেয়েছিলেন, যেটিকে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারের অগ্রদূত বলা হয়। তাঁর তৃতীয় উপন্যাস ‘গো, ওয়েন্ট, গন’ ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারের জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছিল।

২০০৫ সাল থেকে দেওয়া হচ্ছে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার। প্রথম ইন্টারন্যাশনাল বুকার পুরস্কার পেয়েছিলেন আলবেনিয়ান লেখক ইসমাইল কাদারে।

জার্মান প্রেমের গল্প ‘কাইরোস’ বুকার পুরস্কার জিতল

আপডেট সময় ১০:২৪:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

জার্মান লেখিকা জেনি এরপেনবেক এবং অনুবাদক মাইকেল হফম্যান গতকাল মঙ্গলবার কাইরোস উপন্যাসের জন্য আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারে বিজয়ী হয়েছেন। জার্মান ভাষায় লেখা বইটি ১৯৮০-এর দশকে পূর্ব বার্লিনে একজন বয়স্ক পুরুষের সঙ্গে এক যুবতীর ‘ধ্বংসাত্মক সম্পর্কের’ কাহিনি তুলে ধরা হয়েছে।

লন্ডনের টেট মডার্ন গ্যালারিতে একটি অনুষ্ঠানে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কারটি হস্তান্তর করা হয়। সারা বিশ্বের কথাসাহিত্যের কাজকে স্বীকৃতি দিতে ইংরেজিতে অনুবাদ হওয়া বই থেকে বুকার পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা হয়। পুরস্কারের ৬২ হাজার ডলার লেখক এবং অনুবাদকের মধ্যে সমানভাবে ভাগ করে দেওয়া হবে।

২০২৪ সালের বিচারকদের সভাপতি এলেনর ওয়াচটেল এরপেনবেকের ‘উজ্জ্বল গদ্য’, ‘মানবিক সম্পর্কের জটিলতা’ এবং পূর্ব বার্লিনের পরিবেশের বর্ণনার প্রশংসা করেছেন। উপন্যাসটিতে পূর্ব জার্মানির পতনের সময়ে গড়ে ওঠা একটি প্রেমের সম্পর্কের কথা বলা হয়েছে।

‘কাইরোস’ এরপেনবেকের চতুর্থ উপন্যাস। তাঁর দ্বিতীয় উপন্যাস ‘দ্য এন্ড অব ডেজ’–এর জন্য তিনি ২০১৫ সালে ইনডিপেনডেন্ট ফরেন ফিকশন পুরস্কার পেয়েছিলেন, যেটিকে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারের অগ্রদূত বলা হয়। তাঁর তৃতীয় উপন্যাস ‘গো, ওয়েন্ট, গন’ ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কারের জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছিল।

২০০৫ সাল থেকে দেওয়া হচ্ছে আন্তর্জাতিক বুকার পুরস্কার। প্রথম ইন্টারন্যাশনাল বুকার পুরস্কার পেয়েছিলেন আলবেনিয়ান লেখক ইসমাইল কাদারে।