ঢাকা ১০:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১৫ মে থেকে তাপপ্রবাহের আভাস

  • ডিপি ডেস্ক
  • আপডেট সময় ১০:৪০:২৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০২৪
  • 11

এপ্রিলজুড়ে তীব্র ও অতি তীব্র তাপপ্রবাহে কেটেছে দেশের আবহাওয়া। পরিসংখ্যান অনুযায়ী ৭৬ বছরের মধ্যে রেকর্ড তাপপ্রবাহ বয়ে যায় দেশের ওপর দিয়ে। এর মধ্যে স্বস্তি নিয়ে আসে মে মাস। মের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধারাবাহিক বৃষ্টি শুরু হয়। তাপমাত্রাও রয়েছে স্বাভাবিক। তবে আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ১৫ মে থেকে ফের তাপপ্রবাহ দেখা দিতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, চলতি মাসের ১৫ তারিখ থেকে বাড়বে তাপমাত্রা। ওই সময় রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেটের কিছু কিছু জায়গায় হয়তো বৃষ্টি থাকবে। কিন্তু অন্যান্য জায়গায় তা কমে যাবে।

আবহাওয়াবিদ তরিফুল নেওয়াজ কবীর বণিক বার্তাকে বলেন, ‘‌‌এপ্রিল ও মে হলো সবচেয়ে উষ্ণতম মাস। আমরা দেখেছি মে মাসে সর্বোচ্চ রেকর্ড ছুঁয়েছে তাপমাত্রা। টানা চলেছে তাপপ্রবাহ। একইভাবে মে মাসে সাধারণত বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। তবে চলতি মাসের ১৫ তারিখের পর কোথাও কোথাও বৃষ্টিপাত কমে যাবে। তখন তাপমাত্রা বাড়বে। কোথাও কোথাও তাপপ্রবাহও হতে পারে। তবে ঠিক এ সময় নিশ্চিত করে বলা যায় না তাপপ্রবাহ কত দিন থাকবে বা কোথায় হবে।’

শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সিলেটে সর্বোচ্চ ২৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা, ফরিদপুর, দিনাজপুর, মোংলাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় কম-বেশি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।৷ পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসেও ঢাকা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সারা দেশে শনিবার দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৫ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে মোংলায়।

চলতি মৌসুমে ৩১ মার্চ থেকে তাপপ্রবাহ শুরু হয়। ৬ মে পর্যন্ত টানা ৩৭ দিন ধরে এ পরিস্থিতি বিরাজ করে। তবে গত ২ মে থেকে বৃষ্টি হওয়ার পূর্বাভাস দেয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। তখন বলা হয়েছিল, ২ মে থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি ধীরে ধীরে সারা দেশে বিস্তৃত হবে, আর ৭ মের পর দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে আসবে। ওই আভাসের পর থেকে সারা দেশে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা চলছে কয়েকদিন ধরে।

এদিকে গতকাল সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টায় আবহাওয়ার সারসংক্ষেপে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

ডিপজলের দায়িত্ব পালনে বাধা নেই চলচ্চিত্র সমিতিতে

১৫ মে থেকে তাপপ্রবাহের আভাস

আপডেট সময় ১০:৪০:২৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১১ মে ২০২৪

এপ্রিলজুড়ে তীব্র ও অতি তীব্র তাপপ্রবাহে কেটেছে দেশের আবহাওয়া। পরিসংখ্যান অনুযায়ী ৭৬ বছরের মধ্যে রেকর্ড তাপপ্রবাহ বয়ে যায় দেশের ওপর দিয়ে। এর মধ্যে স্বস্তি নিয়ে আসে মে মাস। মের প্রথম সপ্তাহ থেকে ধারাবাহিক বৃষ্টি শুরু হয়। তাপমাত্রাও রয়েছে স্বাভাবিক। তবে আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ১৫ মে থেকে ফের তাপপ্রবাহ দেখা দিতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, চলতি মাসের ১৫ তারিখ থেকে বাড়বে তাপমাত্রা। ওই সময় রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেটের কিছু কিছু জায়গায় হয়তো বৃষ্টি থাকবে। কিন্তু অন্যান্য জায়গায় তা কমে যাবে।

আবহাওয়াবিদ তরিফুল নেওয়াজ কবীর বণিক বার্তাকে বলেন, ‘‌‌এপ্রিল ও মে হলো সবচেয়ে উষ্ণতম মাস। আমরা দেখেছি মে মাসে সর্বোচ্চ রেকর্ড ছুঁয়েছে তাপমাত্রা। টানা চলেছে তাপপ্রবাহ। একইভাবে মে মাসে সাধারণত বৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। তবে চলতি মাসের ১৫ তারিখের পর কোথাও কোথাও বৃষ্টিপাত কমে যাবে। তখন তাপমাত্রা বাড়বে। কোথাও কোথাও তাপপ্রবাহও হতে পারে। তবে ঠিক এ সময় নিশ্চিত করে বলা যায় না তাপপ্রবাহ কত দিন থাকবে বা কোথায় হবে।’

শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সিলেটে সর্বোচ্চ ২৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা, ফরিদপুর, দিনাজপুর, মোংলাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় কম-বেশি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।৷ পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসেও ঢাকা, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সারা দেশে শনিবার দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৫ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে মোংলায়।

চলতি মৌসুমে ৩১ মার্চ থেকে তাপপ্রবাহ শুরু হয়। ৬ মে পর্যন্ত টানা ৩৭ দিন ধরে এ পরিস্থিতি বিরাজ করে। তবে গত ২ মে থেকে বৃষ্টি হওয়ার পূর্বাভাস দেয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। তখন বলা হয়েছিল, ২ মে থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি ধীরে ধীরে সারা দেশে বিস্তৃত হবে, আর ৭ মের পর দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে আসবে। ওই আভাসের পর থেকে সারা দেশে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা চলছে কয়েকদিন ধরে।

এদিকে গতকাল সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টায় আবহাওয়ার সারসংক্ষেপে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।