ঢাকা ০৩:৩৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুন্দরবনের ক্ষত স্পষ্ট হচ্ছে, মিলছে বন্য প্রাণীর মৃতদেহ

  • প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় ০৪:২৬:৩৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪
  • 9

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে প্রায় ৩০ ঘণ্টা ধরে জোয়ার-জলোচ্ছ্বাসের পানিতে প্লাবিত হয় গোটা সুন্দরবন। এতে বন্য প্রাণী ও বনজীবীদের জন্য করা মিঠাপানির পুকুরগুলোতে ঢুকে পড়েছে সাগরের লোনাজল। মিলছে হরিণের মৃতদেহ। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বন বিভাগের অফিস, কর্মীদের থাকার জায়গা, জেটিসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

এখনো উত্তাল বঙ্গোপসাগর ও সাগর উপকূলীয় বনের নদীগুলো। ফলে বনের সব এলাকায় যেতে পারছেন না বনকর্মীরা। তাই কী পরিমাণ বন্য প্রাণীর ক্ষতি হয়েছে, সে বিষয়ে এখনো কোনো ধারণা দিতে পারেনি বন বিভাগ।

এর মধ্যে দুটি হরিণের মরদেহ ও নয়টি আহত হরিণকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দেওয়ার কথা জানিয়েছে বন বিভাগ। বনের কটকা ও দুবলা এলাকায় মৃত হরিণ দুটি পাওয়া যায়।

সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) কাজী মোহাম্মদ নূরুল করিম বলেন, ‘এখনো আমরা সব জায়গায় যেতে পারছি না। সাগর ও নদী উত্তাল। প্রায় ২৫ থেকে ৩০ ঘণ্টা জলোচ্ছ্বাস ছিল। যার ফলে অনেক বন্য প্রাণী মারা যাওয়ার আশঙ্কা করছি। আরও বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে আমরা জানাতে পারব।’ এর সঙ্গে তিনি যোগ করেন, কটকার পুকুরটি সাগরে বিলীন হয়ে গেছে। বিভিন্ন বন অফিসের জানালার গ্লাস, সোলার প্যানেল ও পানির ট্যাংক ঝড়ে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেটি, পুকুরসহ অন্যান্য স্থাপনাও।

সুন্দরবনের দুবলার চর এলাকায় উপড়ে পড়া গাছপালার মধ্যে আহত অবস্থায় পড়ে থাকা একটি হরিণের ছবি দিয়ে খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষক মিহির কুমার দো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, ‘হরিণটি বড় ভাগ্যের জোরে বেঁচে গেলেও আরও কত হরিণ ও বন্য প্রাণী জলোচ্ছ্বাসে ভেসে গেছে, তার কোনো হিসাব কখনো পাওয়া যাবে না।’ তিনি বলেন, বন্য প্রাণীর মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। দুটি মৃত হরিণ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে বনের মধ্যে প্রাণীরা মারা গেলে সব তথ্য পাওয়াও যাবে না।

সুন্দরবনের ক্ষত স্পষ্ট হচ্ছে, মিলছে বন্য প্রাণীর মৃতদেহ

আপডেট সময় ০৪:২৬:৩৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪

ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে প্রায় ৩০ ঘণ্টা ধরে জোয়ার-জলোচ্ছ্বাসের পানিতে প্লাবিত হয় গোটা সুন্দরবন। এতে বন্য প্রাণী ও বনজীবীদের জন্য করা মিঠাপানির পুকুরগুলোতে ঢুকে পড়েছে সাগরের লোনাজল। মিলছে হরিণের মৃতদেহ। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বন বিভাগের অফিস, কর্মীদের থাকার জায়গা, জেটিসহ বিভিন্ন স্থাপনা।

এখনো উত্তাল বঙ্গোপসাগর ও সাগর উপকূলীয় বনের নদীগুলো। ফলে বনের সব এলাকায় যেতে পারছেন না বনকর্মীরা। তাই কী পরিমাণ বন্য প্রাণীর ক্ষতি হয়েছে, সে বিষয়ে এখনো কোনো ধারণা দিতে পারেনি বন বিভাগ।

এর মধ্যে দুটি হরিণের মরদেহ ও নয়টি আহত হরিণকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দেওয়ার কথা জানিয়েছে বন বিভাগ। বনের কটকা ও দুবলা এলাকায় মৃত হরিণ দুটি পাওয়া যায়।

সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) কাজী মোহাম্মদ নূরুল করিম বলেন, ‘এখনো আমরা সব জায়গায় যেতে পারছি না। সাগর ও নদী উত্তাল। প্রায় ২৫ থেকে ৩০ ঘণ্টা জলোচ্ছ্বাস ছিল। যার ফলে অনেক বন্য প্রাণী মারা যাওয়ার আশঙ্কা করছি। আরও বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে আমরা জানাতে পারব।’ এর সঙ্গে তিনি যোগ করেন, কটকার পুকুরটি সাগরে বিলীন হয়ে গেছে। বিভিন্ন বন অফিসের জানালার গ্লাস, সোলার প্যানেল ও পানির ট্যাংক ঝড়ে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেটি, পুকুরসহ অন্যান্য স্থাপনাও।

সুন্দরবনের দুবলার চর এলাকায় উপড়ে পড়া গাছপালার মধ্যে আহত অবস্থায় পড়ে থাকা একটি হরিণের ছবি দিয়ে খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষক মিহির কুমার দো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, ‘হরিণটি বড় ভাগ্যের জোরে বেঁচে গেলেও আরও কত হরিণ ও বন্য প্রাণী জলোচ্ছ্বাসে ভেসে গেছে, তার কোনো হিসাব কখনো পাওয়া যাবে না।’ তিনি বলেন, বন্য প্রাণীর মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। দুটি মৃত হরিণ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে বনের মধ্যে প্রাণীরা মারা গেলে সব তথ্য পাওয়াও যাবে না।