ঢাকা ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
টপ নিউজ :
কুষ্টিয়ায় পুুকুরে ডুবে তিন শিশুর মৃত্যু মরদেহ ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবী পরিবারের চল্লিশ উর্ধ বয়সী স্কাউটারদের পায়ে হেঁটে ৫০ কিলোমিটার পরিভ্রমণে যাত্রা বেইলি রোডে আগুনে প্রাণ গেল ২ সাংবাদিকের কাচ্চি ভাই নয়, নিচের দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত: র‌্যাব বেইলি রোডে আগুন: মৃতের সংখ্যা বাড়ার কারণ জানালেন চিকিৎসক ৩ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে চট্টগ্রামের নির্মাণাধীন হিমাগারের আগুন বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় রাষ্ট্রপতির শোক বেইলি রোডের আগুন লাগা বহুতল ভবনটিতে অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা ছিল না: প্রধানমন্ত্রী ভবনে ভেন্টিলেশন ছিল না, নিহতরা ধোঁয়ায় মারা গেছেন

ভবনে ভেন্টিলেশন ছিল না, নিহতরা ধোঁয়ায় মারা গেছেন

রাজধানীর বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না বলে মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরী বলেছেন, আগুনের ঘটনায় অনেকে মারা গিয়েছেন। এই মৃত্যু কাম্য নয়। এই মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না। ভবনটিতে একটি মাত্র সিঁড়ি আছে। ধোঁয়ার কারণে মানুষ যখন অচেতন হয়ে পড়ে ছিল, সেখানে কোনো ভেন্টিলেশন ছিল না। আমরা একটি তদন্ত কমিটি করেছি, কারো গাফিলতি ছিল কি না আমরা দেখতে চাই।

১ মার্চ, শুক্রবার রাজধানীর বেইলি রোডের গ্রীণ কজি কটেজ ভবন পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

আবদুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরী বলেন, এই ভবনে ফায়ার সেফটি প্ল্যান ছিল কি না আমরা তদন্ত করে দেখতে চাই। এছাড়া ভবন নির্মাণ করতে অন্য প্রতিষ্ঠানের অনুমতি ছিল কি না তাও আমরা তদন্ত করে দেখবো।

ভবনটিতে অফিস করার অনুমতি ছিল। কিন্তু অফিস না করে এখানে বিভিন্ন রেস্টুরেন্টসহ দোকান করা হয়েছে, এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা শুধু ফায়ার সেফটি প্ল্যানটা দেখি। এ বিষয়ে রাজউক বলতে পারবে। তবে বিষয়টি আমরাও তদন্ত করে দেখব।

তিনি জানান, ভবনটিকে ইতিপূর্বে ফায়ার নিরাপত্তা সংক্রান্ত নোটিশ দেয়া হয়েছিল। ব্যবসায়ীদের অগ্নি নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রাখা দরকার।

আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগুনের সূত্রপাত হয়েছিলো নিচতলা থেকে। আমাদের প্রাথমিকভাবে ধারণা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে বেইলি রোডের ওই ভবনের নিচের অংশে আগুন লাগে। খবর পেয়ে পর্যায়ক্রমে ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজে যোগ দেয়। রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ ঘটনায় ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। এদের মধ্যে ২২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এছাড়া ৭৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

দৌলতপুরে প্রান্তিক কৃষকের মাঝে প্রণোদনার বীজ ও সার বিতরন

ভবনে ভেন্টিলেশন ছিল না, নিহতরা ধোঁয়ায় মারা গেছেন

আপডেট সময় ০৪:২৯:২৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

রাজধানীর বেইলি রোডে আগুনের ঘটনায় মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না বলে মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব মো. আবদুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরী বলেছেন, আগুনের ঘটনায় অনেকে মারা গিয়েছেন। এই মৃত্যু কাম্য নয়। এই মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না। ভবনটিতে একটি মাত্র সিঁড়ি আছে। ধোঁয়ার কারণে মানুষ যখন অচেতন হয়ে পড়ে ছিল, সেখানে কোনো ভেন্টিলেশন ছিল না। আমরা একটি তদন্ত কমিটি করেছি, কারো গাফিলতি ছিল কি না আমরা দেখতে চাই।

১ মার্চ, শুক্রবার রাজধানীর বেইলি রোডের গ্রীণ কজি কটেজ ভবন পরিদর্শন শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

আবদুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরী বলেন, এই ভবনে ফায়ার সেফটি প্ল্যান ছিল কি না আমরা তদন্ত করে দেখতে চাই। এছাড়া ভবন নির্মাণ করতে অন্য প্রতিষ্ঠানের অনুমতি ছিল কি না তাও আমরা তদন্ত করে দেখবো।

ভবনটিতে অফিস করার অনুমতি ছিল। কিন্তু অফিস না করে এখানে বিভিন্ন রেস্টুরেন্টসহ দোকান করা হয়েছে, এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা শুধু ফায়ার সেফটি প্ল্যানটা দেখি। এ বিষয়ে রাজউক বলতে পারবে। তবে বিষয়টি আমরাও তদন্ত করে দেখব।

তিনি জানান, ভবনটিকে ইতিপূর্বে ফায়ার নিরাপত্তা সংক্রান্ত নোটিশ দেয়া হয়েছিল। ব্যবসায়ীদের অগ্নি নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রাখা দরকার।

আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগুনের সূত্রপাত হয়েছিলো নিচতলা থেকে। আমাদের প্রাথমিকভাবে ধারণা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে বেইলি রোডের ওই ভবনের নিচের অংশে আগুন লাগে। খবর পেয়ে পর্যায়ক্রমে ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজে যোগ দেয়। রাত ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ ঘটনায় ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। এদের মধ্যে ২২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এছাড়া ৭৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।